প্রসবকালীন প্রস্তুতি: হাসপাতালে যাওয়ার সময় যে জিনিসগুলো সাথে রাখবেন


গর্ভবতী মায়ের গর্ভকালীন বয়স যদি ৩২ সপ্তাহ হয়ে থাকে তবে এখন থেকেই হাসপাতালে যেতে হলে কী কী সাথে নেয়া প্রয়োজন সেসম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ করুন এবং ৩৬ সপ্তাহের মধ্যে সম্পূর্ণ ব্যাগ তথা জিনিসপত্র গুছিয়ে রাখুন। কারণ এমনও হতে পারে, আপনার হয়তো হাসপাতালে যাওয়ার কোনো প্রস্তুতিই ছিলো না, কিন্তু হঠাৎ জরুরি ভিত্তিতে হাসপাতালে যেতে হলো। তখন সাধারণ জিনিসের জন্য অকারণে ঝামেলা হতে পারে।

ছবিসূত্রঃ Cells4Life

তবে হাসপাতালের কিছু নিয়ম বা বিধি নিষেধ আছে। অনেক হাসপাতালের নিয়ম অনুযায়ী ইলেক্ট্রিক কোনো জিনিস যেমন: হিটার বা ওয়াটার হিটার ইত্যাদি সঙ্গে নেয়া নিষেধ। আপনি শিশুর কাঁথা, বালিশ, জামা কাপড় ইত্যাদি নিতে পারেন। তবে এটাও মনে রাখতে হবে, হাসপাতালে আপনাকে খুব বেশি হলে ৫দিন থাকতে হতে পারে। সিজারিয়ান ডেলিভারি হলেও ৫দিনের বেশি হাসপাতালে থাকার প্রয়োজন হয় না। বেশি জিনিসপত্র নিলে হাসপাতালে সেগুলো রাখতেও অসুবিধা হতে পারে।

ছবিসূত্রঃ The Mammas Club – WordPress.com

তবে সবচেয়ে ভালো হয় যদি আপনি ২টি ব্যাগ প্রস্তুত করেন। একটিতে প্রসবের সময় প্রয়োজনীয় জিনিস রাখবেন এবং অন্যটিতে প্রসব পরবর্তীকালে এবং শিশুর ব্যবহারের জন্য জিনিস রাখতে পারেন। যদি নরমাল ডেলিভারির মাধ্যমে শিশুর জন্ম হয়, তবে হয়তো দ্বিতীয় ব্যাগটি আপনার প্রয়োজন হবে না। কিন্তু যদি সিজারিয়ান ডেলিভারি হয় তবে শিশুকে নিয়ে কিছুদিন হাসপাতালে থাকার মতো জিনিস আপনার হাতের কাছে প্রয়োজন হতে পারে।

প্রসবের আগে হাসপাতালে যাওয়ার সময় আপনার যেসব জিনিস সাথে নেয়া প্রয়োজন

ছবিসূত্রঃ MadeForMums
  • আপনার মেটার্নিটি সম্পর্কিত সকল কাগজ যেমন: ডাক্তারের প্রেসক্রিপশন, বিভিন্ন টেস্টের রিপোর্ট ও মাসিক চেকাপের রেকর্ড ইত্যাদি তারিখ অনুযায়ী একটার পর একটা সাজিয়ে একটি ফাইলে গুছিয়ে রাখুন।
  • আপনার পছন্দানুযায়ী কয়েক সেট ঢিলেঢালা ও আরামদায়ক পোশাক যেমন: ম্যাক্সি, টপ্স-স্কার্ট ইত্যাদি গুছিয়ে নিন; যেগুলো আপনি প্রসবের আগে,  প্রসবের সময় ও পরবর্তীতে ব্যবহার করবেন। প্রসবের আগে আপনাকে হাসপাতালের করিডোর বা সিঁড়িতে হাঁটাহাঁটি করতে বলা হতে পারে। সেক্ষেত্রে বেশি লম্বা জামা আবার অসুবিধার সৃষ্টি করতে পারে। আবার হাসপাতালে অনেক গরম বা ঠাণ্ডা থাকতে পারে। তাই আবহাওয়া বুঝে হালকা বা ভারী কাপড় নিয়ে নিন। তবে গাঢ় রঙের ও প্রিন্টের পোশাক পরা ভালো। এতে অযাচিত দাগ লেগে গেলেও অন্য কেউ তা বুঝতে পারবে না।
  • নরম সোল ও হালকা চটি-জুতো নিন, যেন জুতো খুলতে বা পড়তে কোনো অসুবিধা না হয়। আবার সোল শক্ত হলে হাঁটাহাঁটি করার সময় গোড়ালিতে ব্যাথা করতে পারে।
  • আবহাওয়া গরম হোক বা ঠাণ্ডা হোক, সাথে একজোড়া মোজা নিয়ে নিন, কারণ প্রসবের সময় অনেকের হঠাৎ পা ঠাণ্ডা হয়ে আসে।
  • মালিশের তেল বা লোশন সাথে রাখুন। প্রসবের সময় মায়ের কোমর, পা ইত্যাদি অনেক ব্যাথা করতে পারে, তখন মালিশের প্রয়োজন হতে পারে।
  • বড় বড় ডিসপেন্সারিতে বার্থ বল নামক বিশাল আকৃতির বল পাওয়া যায়। প্রসবের সময় এই বার্থ বলে বসে থাকা প্রসবের জন্য সহায়ক।
ছবিসূত্রঃ BabyCentre
  • সাথে ভ্যাসলিন বা লিপজেল রাখতে পারেন। এসময় ঘন ঘন ঠোঁট শুকিয়ে যেতে পারে।
  • এসময় মায়ের প্রচুর শক্তি প্রয়োজন। তাই শুকনো খাবার, গ্লুকোজ, স্যালাইন বা পানীয় ইত্যাদি সাথে রাখুন।
  • অনেকসময় নির্দিষ্ট তারিখ পার হয়ে গেলেও মায়ের প্রসব বেদনা নাও উঠতে পারে। এসময় ভয় বা দুশ্চিন্তা না করে সময় কাটানোর জন্যে ভালো বই সাথে রাখতে পারেন।
  • চুল বেঁধে রাখার জন্য চিরুনি ও কয়েকটি ক্লিপ বা ব্যান্ড সাথে রাখতে পারেন।
  • হাসপাতাল কখনই আপনাকে পর্যাপ্ত আরামদায়ক বা ঘরোয়া পরিবেশ দিতে পারবে না। তাই আপনার প্রয়োজনীয় চাদর বা বালিশ সাথে রাখতে পারেন।

প্রসবের সময় আপনার সাথে যিনি থাকবেন তার জন্য যেসব জিনিস সাথে নেয়া উচিত

  • প্রসবের সময় মায়ের প্রচুর গরম লাগতে পারে। তাই মায়ের সাথে যিনি থাকবেন, তিনি ছোট টেবিল ফ্যান সাথে রাখতে পারেন। যেন প্রয়োজনে মায়ের মাথার কাছে তা ধরে রাখা যায় মাকে শান্ত করার জন্য।
  • ঘরে পরার জুতো।
  • কয়েক সেট আরামদায়ক পোশাক।
  • বাঁকানো যায় এমন স্ট্র বা পাইপ যেন মাকে যেকোনো অবস্থায় পানি বা তরল খাবার এর মাধ্যমে সহজে খাওয়ানো যায়।
  • মোবাইল ফোন ও চার্জার নিতে ভুলবেন না।
  • পর্যাপ্ত খাবার ও পানি সাথে রাখুন যেন মায়ের প্রসবের সময় সংঙ্গীকে খাবারের জন্য ছোটাছুটি করতে না হয়।
  • পেস্ট, টুথব্রাশ, টয়লেট টিস্যু, তুলা, হেক্সিসল, স্যাভলন লিকুইড, ম্যাটারনিটি প্যাড, হ্যান্ডওয়াশ, সাবান, টাওয়াল, বোতল ইত্যাদি ছোটোখাটো জিনিসও সাথে রাখতে হবে।

নবজাতক শিশুর জন্য যেসব জিনিস সাথে রাখতে হবে

ছবিসূত্রঃ Rock My Family
  • শিশুকে জড়িয়ে রাখার জন্য ২টি মোটা চাদর বা কাঁথা বা তোয়ালে সাথে রাখুন।
  • শিশুর জন্য কয়েক সেট আরামদায়ক সুতি কাপড় সাথে নিন। এছাড়া শিশুর ন্যাপি, ডায়পার, ন্যাপকিন, টিস্যু, ওয়েট টিস্যু ইত্যাদি হাতের কাছে রাখুন।
  • শিশুর বিছানা ও মশারি নিতে পারেন।
  • শিশুর প্রসাধন সামগ্রী যেমন: তেল, সাবান ইত্যাদি সাথে নিন।
  • শিশুর হাত ও পায়ের জন্য মোজা সাথে নিতে পারেন।
  • শিশুকে হাসপাতালে জীবাণুমুক্ত পরিবেশ দিতে হবে। তাই এসময় শিশুকে কারো কোলে দেয়ার আগে তার হাত ধুয়ে নিতে বলুন। সাথে স্যানিটাইজার রাখতে পারেন, এটি ২ হাতে মাখিয়ে নিলেই জীবাণু চলে যায়, হাত ধোয়ার ঝামেলা করতে হয় না।

Featured Image: Oh Baby Havens – WordPress.com

Comments 0

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You may also like

More From: গর্ভবতী মায়ের যত্ন

DON'T MISS