কিশোরীদের ত্বকের সমস্যা সমাধানের কার্যকরী উপায়


আপনার সন্তান কি আয়নার সামনে প্রায়ই বসে থাকে? সে কি তার ত্বক নিয়ে বেশি চিন্তিত? কিশোর কিশোরীদের মুখে নানা কারণে ব্রণ হয়ে থাকে। ব্রণ ছাড়াও আরো নানা সমস্যা হতে পারে। এ সময় সাধারণত বয়ঃসন্ধিকালের জন্য ত্বকে নানা সমস্যা দেখা যায়। তারা শারীরিক, মানসিক ও আবেগীয়ভাবে নানা পরিবর্তনের সম্মুখীন হয়। এ ধরনের পরিবর্তনের সাথে খাপ খাওয়াতে পারা জরুরি। জেনে নিন কিশোরীদের ত্বকের সমস্যা ও সমাধানের কার্যকরী উপায় সম্পর্কে।

ব্রণ

যেকোনো বয়সের মেয়েদের ত্বকের সবচেয়ে বড় ও সাধারণ সমস্যা হলো ব্রণ। ত্বকে ব্রণ হলে চেহারার সৌন্দর্য নষ্ট হয়। চেহারায় দীপ্তি ও উজ্জ্বলতা ধরে রাখার জন্য নিজেকে বেশ সচেতন থাকতে হয়। কিশোরীদের বয়ঃসন্ধিকালে ত্বকে ব্রণ দেখা দেয়। এ সময়ে অনেকে হতাশায় ভোগে। তা ঠিক নয়। ত্বকে ব্রণ হলে হতাশায় না ভোগে তার সমাধান বের করা জরুরি।

ব্রণ সমস্যা; Source: Middle Earth – WordPress.com

ত্বকে নানা কারণে ব্রণ হতে পারে। যেমন মাথায় খুশকি থাকলে ব্রণ হওয়ার প্রবণতা বেড়ে যায়। ধুলোবালি ও রোদ থেকে এসে মুখ না ধুলে ত্বকে ব্রণ হয়। এসব কারণে কপালেও ব্রণ হয়ে থাকে। তাছাড়া শিশু কিশোরেরা পর্যাপ্ত পানি পান করে না। যার ফলে ত্বকে সহজেই ব্রণ হয়ে যায়। এমতাবস্থায় প্রতিদিন দুইবার করে ভালো ক্লিনজার দিয়ে মুখ ধোওয়া জরুরি। মুখে এমন কোনো পণ্য ব্যবহার করা যাবে না যার ফলে ত্বকে তেল জমে থাকে। তৈলাক্ত ত্বকে ব্রণ ও ক্ষত বেশি হয়।

চেহারায় অতিরিক্ত ব্রণ; Source: blog.clickoncare.com

আপনার সন্তান যেহেতু বয়সে ছোট সেহেতু সে ভালো ব্রান্ডের পণ্য সম্পর্কে অবহিত নয়। আপনি আপনার সন্তানকে ভালো ব্রান্ডের ম্যাকআপ সামগ্রী, প্রাইমার, কাজল, ফেস পাউডার ইত্যাদি কিনে দিন। তাছাড়া ভালো একটি ডে ক্রিম কিনে দিন। যেন তার ত্বক সুন্দর থাকার পাশাপাশি হাইড্রেট থাকে। তাছাড়া মাঝে মাঝে চন্দনের গুঁড়া, মুলতানি মাটির প্যাক লাগানোর পরামর্শ দিতে পারেন। কারণ চন্দন ও মুলতানি মাটি ত্বকের উপকার করে।

তৈলাক্ততা

ত্বকে অতিরিক্ত তেল জমা হলে দেখতে ভালো দেখায় না। তাছাড়া তৈলাক্ত ত্বকে নানা ধরনের সমস্যা দেখা দেয়। এ ধরনের ত্বক খুব সেনসিটিভ থাকে। তৈলাক্ত ত্বকে যেকোনো পণ্য সহজে ব্যবহার করা যায় না।

তৈলাক্ত ত্বকের সমস্যা; Source: irishtimes.com

যেকোনো মূহুর্তেই ব্রণ ওঠে। আপনার সন্তানের ত্বক যদি বেশি তেলতেলে হয় তাহলে ত্বকের যে অংশ বেশি তৈলাক্ত  সে অংশ থেকে তেল দূর করার কৌশল শিখিয়ে দিন। ত্বকে যদি অনাকাঙ্ক্ষিত আরো সমস্যা দেখা দেয় তাহলে অতি দ্রুত চর্মরোগ বিশেষজ্ঞের কাছে নিয়ে যান। চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী চিকিৎসা চালাতে থাকুন।

তৈলাক্ত ত্বকের ব্রণ; Source: glamtainment.com

তৈলাক্ত ত্বকের নানা সমস্যা দূর করার জন্য অনেকে লেজার ট্রিটমেন্ট নিয়ে থাকে। আপনি চাইলে আপনার সন্তানকে এর আওতায় আনতে পারেন। ব্লটিং পেপার তেল শুষে নেয়। ইচ্ছে করলে ব্লটিং পেপার কাজে লাগাতে পারেন। তবে যে সিদ্ধান্তে উপনীত হোন না কেন চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে এগোবেন। তৈলাক্ত ত্বকের যত্নে ফেসপ্যাকের সাথে লেবুর রস, কমলার রস ইত্যাদি দিলে ভালো উপকার পাওয়া যায়।

অতিরিক্ত ঘাম

আপনার সন্তান যদি অতিরিক্ত ঘামে তাহলে তা নিয়ে ভাবা দরকার। ঘাম ভালো, তবে অতিরিক্ত ঘাম বিরক্তিকর। অনেকের মাথা, হাত পায়ের তালু, শরীর অনেক ঘামে। বেশি ঘামলে শরীর থেকে বাজে একটা গন্ধ বের হয়।

আপনার সন্তান যদি অতিরিক্ত ঘামে তাহলে প্রথমত তাকে ভালো একটি পারফিউম ব্যবহার করতে বলুন। কারণ পারফিউমের সুঘ্রাণ তাকে সর্বদা সতেজ রাখতে সহায়তা করবে। দ্বিতীয়ত তাকে দিনে দুইবার গোসল করার পরামর্শ দিন। দিনে দুইবার গোসল করলে সে সজীব থাকতে পারবে। যদি তাতে কাজ না হয় তাহলে চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যান।

অতিরিক্ত ঘাম; Source: MomJunction

খেয়াল রাখবেন আপনার সন্তান সর্বদা সুতি কাপড়ের পোশাক পরিধান করে কিনা। জর্জেট ও অন্যান্য কাপড়ের পোশাক ঘাম শুষে না। যার ফলে ঘামের তীব্র দূর্গন্ধ সৃষ্টি হয়। তাই সন্তানকে সর্বদা সুতি পোশাক পরতে বলুন। সুতি কাপড় ঘাম শোষণ করে এবং ঘামলে তীব্র দূর্গন্ধ সৃষ্টি হয় না।

যদি আপনার সন্তানের পায়ের পাতা অত্যধিক ঘামে তাহলে বাইরে যাওয়ার আগে জুতো ভালো করে শুকিয়ে তারপর যেন পরে সে ব্যাপারে সচেতন থাকুন। জুতো ভেজা ও ময়লা থাকলে পায়ে নানা ধরনের ফাঙ্গাস জনিত সমস্যা হতে পারে। এসকল সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে পোশাক ও জুতো পরিষ্কার রাখুন এবং ভালো করে রোদে শুকিয়ে নিন। রোদের তাপে পোশাক ও জুতোর মাঝে লুকিয়ে থাকা জীবাণু মরে যায়।

অতিরিক্ত অবাঞ্ছিত পশম

বয়ঃসন্ধিকালে শারীরিক অনেক ধরনের পরিবর্তন হয়। এ সময় হরমোনাল পরিবর্তনও লক্ষ্য করা যায়। বয়ঃসন্ধিকালে শরীরে অবাঞ্ছিত পশম গজাতে পারে। এ ব্যাপারে সচেতন থাকা শ্রেয়। অতিরিক্ত পশম সৌন্দর্য ম্লান করে দেয়। তাই এমন অবস্থা হলে তা থেকে পরিত্রাণ লাভ করা প্রয়োজন। অবাঞ্ছিত পশম পরিষ্কার বা দূর েবং যাবতীয় সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়া শ্রেয়।

চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী চলাফেরা করা এবং খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তন করলে অনেক ধরনের পরিবর্তনের সাথে মানিয়ে নেওয়া যায়। তাই আপনার সন্তানকে রুটিন অনুযায়ী চলাচল করার পরামর্শ দিন। অধিক পরিমাণে পানি পান করার পরামর্শ দিন। বেশি করে পানি পান করলে শরীর সর্বদা হাইড্রেট থাকবে এবং ত্বক সতেজ থাকবে। তাছাড়া আপনার সন্তান সুস্থ থাকবে। পুষ্টিকর খাবার, ভিটামিন ও খনিজ লবণ সমৃদ্ধ খাবার খাওয়ার ব্যাপারে উদ্বুদ্ধ করুন। ফলমূল, শাকসবজি, ডিম ও দুধ খাওয়ার ব্যাপারে আগ্রহী করে তুলুন।

Featured Image Source: blog.clickoncare.com

Rikta Richi

রিক্তা রিচির জন্ম ৮ ই নভেম্বর ১৯৯৫ সালে বি বাড়ীয়ার নবীনগর থানার নবীপুর গ্রামে। ছোট থেকে ঢাকায় বসবাস। ২০১০ সালে মোহাম্মদপুর উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় থেকে এস এস সি এবং ২০১২ সালে বীরশ্রেষ্ঠ নূর মোহাম্মদ পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজ থেকে এইচ এস সি পাশ করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত হোম ইকোনোমিকস কলেজের “সম্পদ ব্যবস্থাপনা ও এন্ট্রাপ্রেনরশীপ” বিভাগ থেকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর সম্পন্ন করেন। রিক্তা রিচি কবিতা লিখতে ভালবাসেন। নিয়মিত লিখছেন বাংলাদেশের বিভিন্ন ম্যাগাজিন, পত্রিকা ও জাতীয় দৈনিকে এবং ভারতের বিভিন্ন ম্যাগাজিন ও পত্রিকায়। ২০১৬ সালের একুশে বইমেলায় প্রকাশিত হয় তার প্রথম কাব্যগ্রন্থ “যে চলে যাবার সে যাবেই”। ২০১৯ সালের অমর একুশে গ্রন্থমেলায় প্রকাশিত হয় তার দ্বিতীয় কাব্যগ্রন্থ "বাতাসের বাঁশিতে মেঘের নূপুর"।

Comments 0

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You may also like

More From: লাইফস্টাইল

DON'T MISS