বাড়ন্ত শিশুদের জন্য কিছু মজার খেলা


আপনি কি জানেন খুব ছোট বাড়ন্ত শিশুদের জন্য শারীরিক কসরত কতটা গুরুত্বপূর্ণ? দিনভর শারীরিক কিছু ক্রিয়াকলাপ বাড়ন্ত শিশুর যথাযথ শারীরিক ও মানসিক বিকাশের জন্য অপরিহার্য। তাই বাড়ন্ত শিশুদের সব সময় অ্যাক্টিভ রাখতে হয়।

Source: Shutterstock

কিন্তু শিশুরা একই খেলা বা শারীরিক কসরত বারবার করতে পছন্দ করে না। তাই শিশুকে দিনভর সক্রিয় রাখতে নানা কৌশলের আশ্রয় নিতে হয়। শিশুদের দিনভর সক্রিয় রাখার মতো একাধিক মজার মজার শারীরিক কসরত নিয়ে এখানে আলোচনা করা হলো। শিশুকে দিনের বিভিন্ন সময় এইসব ক্রিয়াকলাপ খেলার ছলে করতে উৎসাহিত করুন। তাহলে বাড়ন্ত ছোট শিশুর যথাযথ শারীরিক ও মানসিক বিকাশ নিশ্চিত হবে।

নেতাকে অনুসরণ করা

শিশুদের সবচেয়ে পছন্দের একটি কাজ হলো বড়দের অনুকরণ করা। তারা সচেতনভাবে বড়দের অনুকরণ করতে ভালবাসে। তাই শিশুর এই পছন্দ কাজে লাগিয়ে নেতাকে অনুসরণ করা নাম দিয়ে তার সাথে খেলতে পারেন। এই খেলার মধ্য দিয়ে তার মানসিক বিকাশ হওয়ার সাথে সাথে শারীরিকভাবে সে অনেক বেশি শক্তিশালী হয়ে উঠবে।

Source: Shutterstock

এই খেলার জন্য আপনার করা বিভিন্ন শারীরিক কসরত তাকে অনুকরণ করতে বলুন। একই রকম ভঙ্গিতে হাটা, হাত পা সঞ্চালনা করা, ব্যায়ামের ভঙ্গি করা, হাততালি দেওয়া, পাখির মতো উড়ে যাওয়া, ট্রেনের মতো সোফার চারপাশ দিয়ে ঘুরপাক খাওয়া, হামাগুড়ি দিয়ে ঘোড়া হয়ে ড্রইং রুমে ঘুরে বেড়ানো ইত্যাদি অনুকরণের মধ্য দিয়ে আপনার শিশু আনন্দিত হবে।

নাচ

ছন্দ সব বাড়ন্ত শিশু পছন্দ করে। তাই শিশুকে পছন্দের গানের সাথে নাচতে দিন। এলোমেলো নাচের মাধ্যমে যেমন সে অনেক বেশি আনন্দিত হবে তেমনি তার শরীরের হাড় এবং মাংসপেশি সুগঠিত হবে।

Source: YouTube

অবশ্য তার জন্য আপনাকে কিছু ভালো গানের সংগ্রহ তৈরি করতে হবে।

খেলার মাঠে যাওয়া

নেতাকে অনুসরণ এবং নাচ, এই দুটি খেলা বৃষ্টিস্নাত দিন বা রাতে করলে শিশুরা বেশি আনন্দিত হয়। কিন্তু যেদিন আকাশ পরিষ্কার থাকে এবং চমৎকার বিকেল আপনার জন্য অপেক্ষা করে, সেদিন নিশ্চয়ই ঘরে থাকা নয়। আপনার বাড়ন্ত শিশুকে নিয়ে নিকটস্থ খেলার মাঠে যান। বিশেষ কোনো খেলার প্রস্তুতি না নিয়ে তাকে এলোমেলো হাঁটার এবং মজা করার সুযোগ দিন।

লুকোচুরি

এমন কোনো অভিভাবক খুঁজে পাওয়া যাবে না যে শিশুকালে লুকোচুরি খেলনি। সুতরাং আপনি শহর বা গ্রাম, যেখানে বসবাস করেন না কেন এই চমৎকার খেলা থেকে আপনার বাড়ন্ত শিশুকে বঞ্চিত করবেন না।

Source: Faking News

শিশুর সাথে লুকোচুরি খেললে তার শারীরিক ও মানসিক বিকাশ নিশ্চিত হওয়ার সাথে সাথে আত্মবিশ্বাস বৃদ্ধি পায়। বিশেষ করে নিজেকে সফলভাবে লুকিয়ে রাখা এবং লুকিয়ে থাকা বাবা মাকে বুদ্ধিমত্তা দিয়ে খুজে বের করা শিশুর মানসিক বিকাশের জন্য অত্যন্ত কার্যকরী।

বাধা ডিঙিয়ে দৌড়ানো

গ্রামের দুরন্ত ছেলেমেয়েদের জন্য আলাদা করে এই খেলার আয়োজন করা লাগে না। কিন্তু শহরাঞ্চলে শিশুরা এই খেলা থেকে সব সময় বঞ্চিত থাকে। তাছাড়া আপনার বাড়ন্ত শিশুকে যদি বাধা ডিঙিয়ে দৌড়ানোর মতো খেলার সাথে সম্পৃক্ত করা যায় তবে তার শরীরের মাংসপেশী খুব দ্রুত সুগঠিত হয়। সুতরাং ঘরের মধ্যে নরম বিছানা তৈরি করে তার উপর বালিশ বা ছোট বল দিয়ে বাধা তৈরি করুন এবং শিশুকে তা ডিঙ্গিয়ে চলতে উৎসাহিত করুন।

বল খেলা

শিশুদের সবচেয়ে পছন্দের খেলার উপকরণ কি? নিঃসন্দেহে বল। সুতরাং আপনার শিশুকে বল খেলতে দিন। ঘরের মধ্যে অন্য শিশুকে সাথে নিয়ে শিশুরা বল খেলতে খুব পছন্দ করে।

Source: Shutterstock

যদি অন্য কাউকে না পাওয়া যায় তবে আপনিই সঙ্গী হিসেবে তার সাথে খেলতে শুরু করুন।

ছোট ছোট কাজ

বাড়ন্ত শিশুর বড়দের দেখা দেখি কাজ করতে পছন্দ করে। তাই আপনার শিশুকে আপনার সাথে ছোট ছোট কাজ করার সুযোগ দিন। তাদের জন্য এমন কাজ নির্বাচন করুন যা তারা খেলা হিসেবে করতে পারে।

আবার কাজটি যথাযথভাবে সম্পন্ন না হলেও কোনো ক্ষতি না হয়। শিশুদের এভাবে ছোট ছোট কাজে সম্পৃক্ত করলে তারা অনেক বেশি আনন্দিত হয়।

ফুল ও ফল কুড়ানো

শিশুরা ফুল বা ফল কুড়াতে খুব ভালোবাসে। সারাদিন বিভিন্ন রকম খেলাধুলা করে তারা যতটা মজা পায় ফল কুড়ানোর সুযোগ পেলে তার চেয়ে বেশি মজা পায়। তাই আপনার আঙিনায় থাকা ছোট কুল, বরই, জলপাই, কামরাঙ্গা, জামরুল বা আম গাছ থেকে ফল পাড়ার পর শিশুকে তা কুড়ানোর দায়িত্ব দিন। নিজেও তার সাথে প্রতিযোগিতা করে ফল কুড়ান, শিশুরা অনেক বেশি আনন্দিত হবে।

বালিশের উপর ঘুমানো

শিশুকে টেলিভিশনের সামনে থেকে সরাতে চান? কয়েকটা বালিশ মেঝেতে পাশাপাশি বিছিয়ে দিন। তারপর এই বালিশগুলো খেলার সামগ্রী বানিয়ে ফেলুন। শিশুকে পাশাপাশি রাখা বালিশগুলোর উপর হাঁটতে বা ঘুমাতে বলুন। খুবই উত্তেজনাপূর্ণ এই খেলা করতে গিয়ে শিশু বালিশের উপর নিজের ভারসাম্য বজায় রাখার অনুশীলন করবে, যা তার শারীরিক ও মানসিক বিকাশে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখবে।

Source: Shutterstock

আপনার সন্তান অল্পদিনের মধ্যেই আরো বেড়ে উঠবে। সুতরাং উপযুক্ত সময়ে তার সঠিক শারীরিক ও মানসিক বিকাশ নিশ্চিত করতে এইসব শারীরিক কসরত এবং খেলা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তাছাড়া শিশুর সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত করা আপনার পক্ষ থেকে তার জন্য হবে শ্রেষ্ঠ উপহার। সুতরাং টেলিভিশন বন্ধ করুন, এবং শিশুকে শারীরিকভাবে খেলাধুলা সম্পৃক্ত করুন। আপনার শিশু সামনের দিনে আরো কঠিন চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করবে। সুতরাং এখনই নানা শারীরিক কসরত এবং ক্রিয়াকলাপ অনুশীলন করার মাধ্যমে তাকে ভবিষ্যতের জন্য প্রস্তুত করুন।

Feature Image: Shutterstock

মোস্তাফিজুর রহমান
তরুণ কথাসাহিত্যিক, কলামিস্ট এবং সাংবাদিক মোস্তাফিজুর রহমানের জন্ম ও বেড়ে ওঠা দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমের জেলা যশোরে। পৈতৃক নিবাস যশোরের সদর থানার খোজারহাট গ্রামে। বাবা-মায়ের তিন সন্তানের মধ্যে মোস্তাফিজুর রহমান সবার বড়। লেখাপড়া করেছেন যশোরের খোজারহাট মাধ্যামিক বিদ্যালয়, ছাতিয়ানতলা চুড়ামনকাঠি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ডা: আব্দুর রাজ্জাক মিউনিসিপ্যাল কলেজ এবং ঢাকার ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে। বিশ্ববিদ্যালয়ে কম্পিউটার প্রকৌশল নিয়ে পড়াশোনা করলেও আত্মনিয়োগ করেছেন সাহিত্য সাধনা এবং সাংবাদিকতায়। শিল্প-সাহিত্যের প্রতি তীব্র অনুরাগী মোস্তাফিজুর রহমান স্কুল জীবন থেকেই লেখালেখি করেন। বাংলাদেশ ও কলকাতার সাহিত্য পত্রিকা, দৈনিক এবং ম্যাগাজিনে লিখে থাকেন। এছাড়া জাতীয় ও আন্তর্জাতিক বিষয় নিয়ে দৈনিক পত্রিকায় কলাম লেখেন নিয়মিত। ২০০৯ সাল থেকে সাংবাদিকতার সাথে জড়িত, একটি অনলাইন পত্রিকা সম্পাদনাসহ কাজ করেছেন বিভিন্ন পত্রিকায়। সাম্প্রতিককালে তারুণ্য, শিল্প-সাহিত্য, চলচ্চিত্র এবং ট্রেন্ডিং বিষয় নিয়ে জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ইউটিউবে আলোচনা করেন। ইউটিউব সহ সকল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মোস্তাফিজুর রহমানকে @MustafizAuthor ইউজারে খুঁজে পাওয়া যাবে। ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারিতে তার প্রথম গল্পগ্রন্থ ‘দ্বন্দ ও পথের খেলা’ প্রকাশিত হয়।

Comments 0

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You may also like

More From: শিশুর যত্ন

DON'T MISS