শিশুকে ছারপোকা কামড়ালে কী হয়? জেনে নিন স্বাস্থ্য ঝুঁকি ও সমাধান সম্পর্কে


বাবা মায়ের কাছে তার প্রতিটি সন্তান খুব গুরুত্বপূর্ণ। বাবা মা সন্তানকে পৃথিবীর অন্য সবার চেয়ে বেশি ভালোবাসেন। সন্তানের সুখে দুঃখে বাবা মা সর্বদা পাশে থাকেন। ছোট থেকে সন্তানকে তারা অনেক কষ্ট করে লালন পালন করেন এবং বড় করে তোলেন। সন্তানের কোনো অসুস্থতায় তারা বিচলিত হয়ে পড়েন। সন্তানকে একটি সুন্দর ও নিরাপদ পরিবেশ প্রদানের জন্য বাবা মায়ের চেষ্টার অন্ত থাকে না।

ছারপোকা; Source: TripSavvy

তারপরেও কোনো কোনো সময় সন্তানদের পুরোটা সুবিধা দিতে পারেন না। বাসায় ছারপোকা থাকলে শিশুদের সুন্দর মুখের মিষ্টি হাসির কথা ভাবা যায় না। কারণ ছারপোকা শিশুদের সারা শরীর, এমনকি মুখেও কামড়ায়। আর এজন্য তাদের শরীরে দাগ হয়ে যায় এবং চুলকায়। ছারপোকা শিশুদের জন্য কতটা ক্ষতিকর, এর হাত থেকে কীভাবে বাঁচা যায় এবং ছারপোকা কামড়ালে স্বাস্থ্যঝুঁকি কী তা সম্পর্কে জেনে নিন।

ছারপোকা কী

ছারপোকা হলো এমন একটি পোকা যা মানুষের শরীরের রক্ত খায়। ছারপোকা খুব ভয়ঙ্কর হতে পারে। সাধারণত যেকোনো বাসায় তোষক, বালিশ ইত্যাদির ভেতরে ছারপোকা লুকিয়ে থাকে। বিশেষ করে যেসব বাসায় দীর্ঘদিন ধরে তোষক, কাঁথা ও বালিশ রোদে দেওয়া না, সেসব বাসায় ছারপোকার আক্রমণ বেড়ে যায়। ছারপোকার কারণে আরামের ঘুম হারাম হয়ে যায়।

হাতে ছারপোকা; Source: WebMD

তাছাড়া ছারপোকার কামড়ে শরীর চুলকায় এবং এলার্জি সংক্রান্ত সমস্যায় ভুগতে হয়। শিশুদের শরীর খুব স্পর্শকাতর হয়। ছারপোকার কামড়ে তাদের শরীরে গোটা ওঠে। যেসব বাসায় ছারপোকার উপদ্রব আছে, সেসব বাসার বড়রা ও ছোটরা ঘুমাতে পারে না সঠিকভাবে। ছারপোকা কামড় দিলে মশার কামড়ের মতো লাল হয়ে যায় এবং ঐ স্থান চুলকায়।

ছারপোকার উপদ্রব বাড়ার কারণ

ছারপোকা এমন এক ক্ষুদ্র পোকা যার উপদ্রব বাড়ে রাতের বেলা। যেসব বাসায় রোদের আলো তেমন পড়ে না এবং যেসব বাসার তোষক, বালিশ বেশ অপরিষ্কার থাকে সেসব বাসায় ছারপোকার আক্রমণ বেড়ে যায়। লেপ, তোষক, জাজিম এসবের ভেতরে ছারপোকার বিস্তার ঘটে। এছাড়া ট্রেন স্টেশন, এয়ারপোর্ট, হোটেল ও বহু মানুষের ভীড় হয় এমন স্থানে ছারপোকার উপদ্রব দেখা যায়।

ছারপোকা ও তার ডিম; Source: Terminix

বিশেষ করে হোটেলের রুমগুলোতে ছারপোকার উপদ্রব বেশি থাকে। কারণ হোটেলে বিভিন্ন পরিবার থেকে বিভিন্ন ধরনের মানুষ আসে। কখনো কখনো অতিথিদের ব্যাগের ভেতরে ছারপোকা লুকিয়ে থাকে যা পরে হোটেলরুমে ছড়িয়ে পড়ে। আবার অনেক দিন যদি হোটেলের রুম ও বিছানা পরিষ্কার করা না হয় তাহলে ময়লা থেকেও ছারপোকার জন্ম হয়। হোটেলের বিছানা, কার্পেট, সোফা, কুশন ইত্যাদির ভেতরে লুকিয়ে থাকে ছারপোকা।

বাচ্চাদের ছারপোকা কামড় দিয়েছে কিনা কীভাবে বুঝবেন

ঢাকা যেন মশার শহরে পরিণত হয়েছে। আপনার সন্তানকে মশা কামড় দিয়েছে নাকি ছারপোকা কামড় দিয়েছে তা কীভাবে বুঝবেন?

  • শরীরে লাল লাল দাগ দেখতে পাবেন।
  • একই রেখায় একাধিক দাগ থাকতে পারে।
  • চুলকানি ও জ্বালা হতে পারে।
  • বাহু, বগল, মুখ ও অন্যান্য অংশ লাল হয়ে যাবে।

ছারপোকা কামড় দিলে কী শিশুদের স্বাস্থ্যঝুঁকি বাড়ে?

ছারপোকা কামড়ালে কোনো স্বাস্থ্যঝুঁকি নেই। চিকিৎসকরাও এমনটা বলে থাকেন। তবে ছারপোকা কামড়ালে শরীরের বিভিন্ন অংশ লাল হয়ে যায়, খোস পাঁচড়ার মতো চুলকায়। এলার্জি বেড়ে যেতে পারে।

ছারপোকার কামড়; Source: Medical News Today

মাঝে মাঝে ব্যথাও হতে পারে। তবে সবার ব্যথা হয় না। ছারপোকা কামড়ালে সবচেয়ে বেশি সমস্যা হয় ঘুমের। কারণ রাতের বেলা ছারপোকার উপদ্রব বেশি বেড়ে যায় এবং ছারপোকার কামড়ে শিশুরা ঘুমাতে পারে না।

ছারপোকা কামড়ালে কী করবেন?

আপনার আদরের সন্তানকে ছারপোকা কামড়ালে বিশেষ ব্যবস্থা নিন, অথবা ক্ষতস্থানটি সাবান পানি দিয়ে ভালো করে ধুয়ে নিন। জীবাণুমুক্ত করার জন্য সাবান পানি উত্তম। এছাড়াও ক্ষতস্থানে অ্যান্টিসেপটিক ক্রিম লাগাতে পারেন। ক্ষতস্থানে বরফ লাগালেও কাজ হয়। এছাড়া আপনি চাইলে ক্ষতস্থানে বেকিং সোডার পেস্ট লাগাতে পারেন।

ছারপোকা তাড়ানোর উপায়

রক্তচোষা এই ছারপোকা তাড়ানোর কৌশল জানা প্রয়োজন। নয়তো ঘরে থাকা যাবে না। প্রতিনিয়ত ছারপোকার আক্রমণে শিশুরা অসুস্থ হয়ে যাবে। জেনে নিন ছারপোকা তাড়ানোর কিছু উপায় সম্পর্কে।

ন্যাপথলিন

ছারপোকা তাড়াতে ন্যাপথলিন ভালো কাজ করে। আপনি যদি ঘর ছারপোকা মুক্ত করতে চান তাহলে ন্যাপথলিন গুঁড়া করে বিছানায় ছড়িয়ে রাখুন। বিছানা ছাড়াও আরো যেখানে ছারপোকার উপদ্রব বেশি, সেখানে ন্যাপথলিনের গুঁড়া ছিটিয়ে রাখুন।

কেরোসিনের প্রলেপ

আসবাবপত্রের ছারপোকা দূর করতে কেরোসিনের প্রলেপ দিতে পারেন। আসবাব ভালো রাখতে, ঘুণপোকা, ছারপোকা ইত্যাদির হাত থেকে আসবাব রক্ষা করতে হলে কেরোসিনের প্রলেপ দেওয়ার বিকল্প নেই।

ল্যাভেন্ডার অয়েল

ঘরের যেখানে যেখানে ছারপোকার উপদ্রব বেশি, সেখানে ল্যাভেন্ডার অয়েল স্প্রে করুন। দুই থেকে তিনদিন স্প্রে করলে কিছুদিন পর আর ছারপোকা খুঁজে পাবেন না।

পুদিনা পাতা

ছারপোকা পুদিনা পাতার গন্ধ সহ্য করতে পারে না। তাই বিছানা থেকে ছারপোকা দূর করতে পুদিনা পাতা রাখতে পারেন।

পুদিনা পাতা; Source: Eibela.Com

বিছানা ছাড়াও সোফায় পুদিনা পাতা রেখে দিতে পারেন। ঘরে পুদিনা পাতা রেখে দিলে তার গন্ধ সহ্য করতে না পেরে ঘর ছেড়ে পালাবে ছারপোকা। শুকনো পুদিনার পাতাও কাজ করবে।

এসেনশিয়াল অয়েল

এসেনশিয়াল অয়েল ছারপোকা দমনে ভালো কাজ করে। খাটের ফ্রেমে এসেনশিয়াল অয়েল মাখিয়ে রাখলে ছারপোকার উপদ্রব কমবে এমনকি ছারপোকা চলে যাবে। বিছানার চাদর পরিষ্কার করার সময় পানির সঙ্গে কয়েক ফোটা এসেনশিয়াল অয়েল যোগ করবেন। তাহলে ছারপোকা মরে যাবে কিংবা চলে যাবে।

গরম পানি

ছারপোকা সহ যেকোনো ব্যাকটেরিয়া ও অণুজীব দমনের জন্য গরম পানি উপকারী। আপনার ঘরের যাবতীয় কাপড়, বিছানা ইত্যাদি গরম পানি দিয়ে ধুয়ে নিন এবং বালিশ, তোশক এসবকিছু রোদে শুকান। গরম পানি ও রোদের তাপে ছারপোকা দমন হবে।  

Featured Image Source: bugslayermosquitoes.com

Rikta Richi

রিক্তা রিচির জন্ম ৮ ই নভেম্বর ১৯৯৫ সালে বি বাড়ীয়ার নবীনগর থানার নবীপুর গ্রামে। ছোট থেকে ঢাকায় বসবাস। ২০১০ সালে মোহাম্মদপুর উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় থেকে এস এস সি এবং ২০১২ সালে বীরশ্রেষ্ঠ নূর মোহাম্মদ পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজ থেকে এইচ এস সি পাশ করে বর্তমানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত হোম ইকোনোমিকস কলেজের “সম্পদ ব্যবস্থাপনা ও এন্ট্রাপ্রেনরশীপ” বিভাগে অধ্যয়নরত । রিক্তা রিচি কবিতা লিখতে ভালবাসে। নিয়মিত লিখে যাচ্ছে বাংলাদেশের বিভিন্ন ম্যাগাজিন, পত্রিকা ও জাতীয় দৈনিকে এবং ভারতের বিভিন্ন ম্যাগাজিন ও পত্রিকায়। ২০১৬ সালে একুশে বইমেলায় প্রকাশিত হয় তার প্রথম কাব্যগ্রন্থ “যে চলে যাবার সে যাবেই”। ২০১৯ সালের অমর একুশে গ্রন্থমেলায় প্রকাশিত হয় তার দ্বিতীয় কাব্যগ্রন্থ "বাতাসের বাঁশিতে মেঘের নূপুর"।

Comments 0

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You may also like

More From: লাইফস্টাইল

DON'T MISS